Skip to main content

যে খাবার শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য বিপদজনক

মা-বাবার কাছে সন্তানের স্বাস্থ্য নিয়ে চিন্তা তো থাকেই। কারন একটি শিশু সুস্থ সবলভাবে বড় হওয়ার জন্য দরকার সঠিক ও পুষ্টিকর খাবারের। তাই শিশুর বৃদ্ধির ও সঠিক বুদ্ধির বিকাশের জন্য, যে খাবার দেওয়া হচ্ছে অবশ্যই তার দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। অনেক সময় অনেক আত্মীয়স্বজনেরা অনেক ধরনের খাবার শিশুকে দিতে চান বা খাওয়াতে চান তার সব কিছু হয়তো শিশুর জন্য ভালো নাও হতে পারে। তাই নিজে সন্তানকে খাওয়ানোর সময় বা অন্য কেউ কিছু খাওয়ানোর সময় অবশ্যই দেখবেন সেই খাবার গুলো শিশুর ওই বয়সের জন্য উপযুক্ত কিনা, যদি উপযুক্ত হয়ও তা সঠিক আকৃতি বা অবস্থায় শিশুকে দেয়া হচ্ছে কিনা। আবার অনেক কিছু খাবার আছে যেগুলো শিশু পছন্দ করলেও স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। বিশেষজ্ঞদের মতে, কিছু মজাদার খাবার বাচ্চারা সহজে হজম করতে পারে না। এসব খাবার তার বিকাশে বাধা সৃষ্টি করে। এই জন্য শিশুর ১ বছর হওয়ার আগে যেসব খাবার শিশুকে দেয়া বিপদজনক তার একটি তালিকা এখানে দেখানো হল। তাহলে চলুন শিশুর স্বাস্থ্য সুস্থ রাখতে ওইসব খাবারের নাম জেনে নেয়।

 

শিশুর বিপদজনক খাবারগুলো

 মধু

শিশু জন্মের পর পরই অভিভাবকরা তাকে মধু চাটতে দেন। কিন্তু বাচ্চারা ১ বছর না হওয়া পর্যন্ত এটা কোনভাবে দেয়া উচিত নয়। শিশুর ৬ মাস বয়স পর্যন্ত মধু তো দূরের কথা কোনও খাবার শিশুর মুখে দেয়া যাবে না। কারণ ১ বছর পর্যন্ত শিশুর বটুলিজম হওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়, আর মধু এই ছত্রাক বহন করে।

 

চকলেট

শিশুদের সবচেয়ে প্রিয় খাবার চকলেট। তবে এতে ব্যবহার করা কোকো বাচ্চাদের হজম শক্তি নষ্ট করে এবং দাঁতের ক্ষতি করে। এ থেকে অনেক শিশুর অ্যালার্জি দেখা দিতে পারে। তাই যথাসম্ভাব চকলেট না দেওয়ায় ভাল আর ১বছরের আগে তো একদমই দেওয়া যাবে না।

 

লবণ

শিশুদের কিডনি লবণ ও সোডিয়াম সহ্য করতে পারে না। কারন লবনেই রয়েছে প্রচুর সোডিয়াম যা শিশুর পাকস্থলীতে খাবার পরিপাকে সমস্যার সৃষ্টি করে।  তাই শিশুর খাবারে লবণ না মেশানই ভালো। তবে ১ বছর পরে শিশুর খাবারে অল্প অল্প করে লবণ মেশাতে পারেন। কিন্তু ১বছরের আগে মোটেও শিশুর খাবার তৈরিতে লবন ব্যবহার করা যাবে না।

 

চিনি

শিশুর খাবারে চিনি মেশানো ঠিক নয়, কারণ অতিরিক্ত চিনিতে শিশুর দাঁত ক্ষয় হতে পারে। তাই চিনির স্বাদ পেতে তাকে মিষ্টি জাতীয় ফল দিতে পারেন যেমন : কলা, মিষ্টি আম ইত্যাদি।

 

গরুর দুধ

শিশুর প্রথম বছরের আগে গরুর দুধ না দেয়াই ভালো। কারন গরুর দুধে থাকে বেশি প্রোটিন এবং সোডিয়াম যা শিশুর ছোট পেটে তা পরিপাক করতে ব্যাঘাত ঘটায়। এছাড়া গরুর দুধে মায়ের দুধ ও ফর্মুলা দুধের থেকে কম আয়রন এবং অত্যাবশ্যকীয় ফ্যাটি এসিড কম থাকে। কিন্তু আয়রন এবং ফ্যাটি এসিড শিশুর বৃদ্ধির জন্য অত্যাবশ্যক। অনেক শিশুর ক্ষেত্রে যদি কম বয়সে গরুর দুধ দেয়া হয় তাহলে অ্যাসিডিটির ও অ্যালার্জির সৃষ্টি করতে পারে।

 

বাদাম

চিনাবাদাম বা এই ধরনের কিছু বাদাম অ্যালার্জির সৃষ্টি করে থাকে তাই সবচেয়ে ভালো হয় এসব খাবার শিশুর এক বছর বয়স হওয়ার আগে না দেয়া। আর যদি পরিবার কোন সদস্যের বাদামে অ্যালার্জি থাকে তাহলে বেশ কিছুদিন অপেক্ষা করে দিতে হবে বা ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে দিতে হবে।

 

ডিম

এই বয়সে ডিম কিছুটা অ্যালার্জি উৎপাদক খাবার। তবে সবার সমস্যা হবেই তা নয়। তাই পরিবারে যদি কারো ডিমে অ্যালার্জি থাকে সেক্ষেত্রে কিছুদিন অপেক্ষা করে দেয়াই উত্তম। যদি অ্যালার্জির কোন সমস্যা না থাকে তাহলে ডিম খেতে কোন সমস্যা হওয়ার কথা না। তবে দিতে হবে ধীরে ধীরে।

 

চিংড়ী মাছ

সব বয়সের মানুষের বেশি অ্যালার্জি উৎপাদক খাবার হচ্ছে চিংড়ী মাছ। তাই শিশু কিছুটা বড় না হওয়া পর্যন্ত এই খাবারটি না দেয়াই ভালো।

 

সামুদ্রিক মাছ

টুনা, স্যামন, কোরাল ইত্যাদি সামুদ্রিক মাছে উচ্চ পরিমানে পারদ থাকে তাই এগুলো শিশুদের দেয়া ঠিক নয়। পাস্তুরাইজেশন ছাড়া দুধে অনেক ধরনের বিপদজনক ব্যাকটেরিয়া থাকে। পাস্তুরাইজেশন ছাড়া দুধ তাই ছোট শিশুদের দেয়া উচিত না।

 

কার্বোনেটেড ড্রিংকস

পেপসি, স্প্রাইট, কোক, সোডা পানি এসব কার্বোনেটেড ড্রিংকসে প্রচুর চিনি, সোডিয়াম এবং আর্টফিশিয়াল ফ্লেভার দেয়া থাকে যা শিশুদের জন্য খুবই ক্ষতিকর। এসব ড্রিংকসের গ্যাসের কারনে কার্বোনেশন ঘটে যা শিশুদের ছোট পাকস্থলীতে সমস্যার সৃষ্টি করে।

 

বড় ফল

ফল যেমন আঙ্গুর, বেরি ইত্যাদি ফলও যদি আস্ত দেয়া হয় শিশুরা কম দাঁত নিয়ে চিবিয়ে খেতে পারবে না। তাই এসব ফল দিতে হলেও ছোট ছোট টুকরো করে কামড়ের আকারে দিতে হবে।

 

বড় ফল ও সবজির বড় টুকরো

এই বয়সে সবজির বড় টুকরো যেমন গাজর, শশা ইত্যাদির এবং ফলের বড় টুকরো যেমন আপেল, নাশপাতি ইত্যাদি দেয়া উচিত নয়। ভালভাবে রান্না করে ছোট টুকরো করে বা পিষে দিতে হবে।

 

কিশমিশ

এই বয়সে তাদের কিশমিশ খাওয়ানো ভালো নয়। কিছুটা বড় হওয়ার পর দিতে হবে। কারন কিসমিসে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন বিদ্যমান থাকে। যা ১ বছরের কম শিশু গ্রহন করতে সক্ষম হয় না।

 

পপকর্ণ

শিশুর এই বয়সে পপকর্ণ খাওয়ানো বিপদজনক। কারন এটি তারা ভালোভাবে চিবিয়ে খেতে পারবে না, আবার গলায় আঁটকে যেতে পারে। তাই একটু বড় না হলে পপকর্ণ না খেতে দেওয়াটা ভাল।

 

শক্ত চকলেট বা জেলি

এই বয়সে এই খাবারগুলো শিশুদের দেয়া যাবে না, বর্জন করতে হবে । তা না হলে এতে শিশুর হজম শক্তি কমে যাবে।

 

স্ট্রবেরি

স্ট্রবেরি ফলটিও অ্যালার্জি উৎপাদক। তাই শিশুদের এক বছর বয়স পর্যন্ত না খাওয়ানোই ভালো।

 

টক ফল

১ বছর পর্যন্ত বাচ্চাকে টক ফল দেয়া উচিত না। কারণ টক জাতীয় ফলে এসিড থাকে যা বাচ্চারা হজম করতে পারে না।

 

পিনাট বাটার

বাদাম থেকে বানানো পিনাট বাটার। এতে শিশুর মারাত্মক অ্যালার্জি হতে পারে। বিভিন্ন রকম বাদাম এবং বীজ জাতীয় খাবার শিশুকে না খাওয়ানোই ভালো।

 

চা এবং কফি

চা, কফি, কোকোয়াতে থাকে ক্যাফেইন যা ক্যালসিয়াম হজমে বাধা দেয়। তাই এই সব পানীয় শিশুদের এবং ছোট বাচ্চাদেরও পান করতে দেয়া উচিত নয়।

 

প্রিয়া সাঈদ

প্রিয়া সাঈদ একজন স্নাতক এবং হাউজওয়াইফ। বই পড়া এবং জ্ঞান অর্জন করা তার প্রধান শখ এবং সাথে সাথে তার অর্জিত জ্ঞানকে সে শেয়ার করতে পছন্দ করে। আর এজন্য বিডি টিপস অ্যান্ড ট্রিকস এ তার এই বাস্তব এবং জ্ঞানগর্ভমূলক পোস্টসমূহ। তার এই পোস্টসমূহ যদি আপনার উপকারে আসে তাহলে অবশ্যই লাইক এবং শেয়ার করবেন আশা করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*